বাংলাদেশের সঙ্গে নেপালি জনগণের গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক: নেপালের রাষ্ট্রদূত

নিজস্ব প্রতিবেদক | প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর ২০২১ ২০:৪৩

অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি

নেপালের মান্যবর রাষ্ট্রদূত ডা. বানশিধর মিশ্রা বলেছেন, বাংলাদেশের সঙ্গে নেপালি জনগণের গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে। শনিবার (১৬ অক্টোবর) সম্প্রতি স্থায়ী সনদ প্রাপ্ত অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির উত্তরাস্থ স্থায়ী ক্যাম্পাসে মাস্টার্স অব পাবলিক হেলথ (এম.পি.এইচ) প্রোগ্রামের নবীন বরণ অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান জনাব মো. লিয়াকত আলী সিকদার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত নবীন বরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নেপালের মান্যবর রাষ্ট্রদূত ডা. বানশিধর মিশ্রা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাষ্ট্রদূতের স্ত্রী কাঠমুন্ড’স্থ মনমোহন মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউট অব হেলথ সায়েন্স এর বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর দূর্গা মিশ্রা। অনুষ্ঠানে মাস্টার্স অব পাবলিক হেলথ প্রোগ্রামের ভর্তিকৃত নেপালি শিক্ষার্থীসহ দেশি-বিদেশি শিক্ষার্থীদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

স্বাগত বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয় বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সম্মানিত সদস্য প্রফেসর ড. এম শাহীন খান বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচিতি তুলে ধরেন। দুই দেশের মধ্যে শিক্ষা বিনিময় কর্মসূচি চালুর বিষয়ে নেপালি রাষ্ট্রদূতের সহযোগিতা কামনা করেন। ফ্যাকাল্টি অব হেলথ সায়েন্স এর পক্ষে এম.পি.এইচ প্রোগ্রামের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. শফিকুল ইসলাম, ফার্মেসী বিভাগের অ্যাডভাইজর প্রফেসর ড. মো. আসলাম হোসেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. রফিক উদ্দিন আহমেদ অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। উপাচার্য আরও বেশি নেপালি শিক্ষার্থীদের ভর্তি হওয়ার আহ্বান জানান এবং গুনগত শিক্ষা প্রদানে দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় নেপালের মান্যবর রাষ্ট্রদূত ডা. বানশিধর মিশ্রা অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির মনোরম পরিবেশ দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেন। তিনি দশম শতাব্দীর বিশ্বখ্যাত বাঙ্গালী বৌদ্ধ পণ্ডিত অতীশ দীপঙ্কর শ্রীজ্ঞান এর নামে প্রতিষ্ঠিত এ বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবস্থাপনায় বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বাংলাদেশের সঙ্গে নেপালি জনগণের গভীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা উল্লেখ করেন। তিনি দুই দেশের শিক্ষার উন্নয়নে একত্রে কাজ করার আগ্রহ ব্যক্ত করেন। মনমোহন মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউট অব হেলথ সায়েন্সেস এর সাথে এমওইউ স্বাক্ষর করার কথা উল্লেখ করেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শ্রদ্ধেয় শিক্ষকমন্ডলীকে ধন্যবাদ জানান। নেপালি শিক্ষার্থীদের পড়াশোনায় মনোনিবেশ করে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করার আহ্বান জানান। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে শিক্ষা বিনিময় কর্মসূচি চালুর প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।

বিশেষ অতিথি প্রফেসর দূর্গা মিশ্রা অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি এর এম.পি.এইচ প্রোগ্রামের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। তিনি উল্লেখ করেন, এম.পি.এইচ প্রোগ্রামটি নেপালে খুবই জনপ্রিয়। মনমোহন মেমোরিয়াল ইনস্টিটিউট অব হেলথ সায়েন্স এর শিক্ষার্থীরা প্রোগ্রামটির বিষয়ে খুবই আগ্রহী বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সভাপতির বক্তৃতায় বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান জনাব মো. লিয়াকত আলী সিকদার বলেন, বাংলাদেশে মোট ১০৮টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে অতীশ দীপঙ্কর ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজিসহ মাত্র ০৫টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থায়ী সনদ প্রাপ্তির গৌরব অর্জন করেছে। শিক্ষা ও গবেষণা খাতে বিশেষভাবে মনোনিবেশ করা হচ্ছে। তিনি শিক্ষার গুনগত মান উন্নয়নের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়কে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বিশেষ স্থানে নিয়ে যাওয়ার জন্য শিক্ষার্থীদের পড়াশুনার প্রতি যত্নবান হওয়ার পরামর্শ প্রদান করেন। তিনি নেপালের মান্যবর রাষ্ট্রদূত ডা. বানশিধর মিশ্রা এবং বিশেষ অতিথি প্রফেসর দূর্গা মিশ্রাকে অত্র বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনের জন্য ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। শিক্ষার্থী বিনিময়ে দু’দেশ একত্রে কাজ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানে বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সম্মানিত সদস্য জনাব সৈয়দ মোহাম্মদ হেমায়েত হোসেন, জনাব গোলাম সারোয়ার কবির, জনাব মো. জোনায়েত আহমেদ, ড. মো. সিরাজুল হক চৌধুরী, বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার এ.কে.এম দেলোয়ার হোসেন, অতিরিক্ত সচিব ড. মনিরুজ্জামান, বাংলাদেশ টেক্সাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডীন অধ্যাপক ড. শেখ মো. মমিনুল আলম, শের-ই-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মির্জা হাসানুজ্জামান, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. নাসির উদ্দিন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোবোটিক এন্ড মেকাট্রোনিক বিভাগের চেয়ারম্যান ড. শামীম দেওয়ান, রেজিস্ট্রার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।




আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


Top